Tue. Nov 19th, 2019

সিলেট টেলিগ্রাফ

সত্য প্রকাশে অবিচল

ধর্মঘট তুলে নিয়েছেন ক্রিকেটাররা,দাবি মেনে নিয়েছে বিসিবি

1 min read

ক্রিকেটারদের ৯টি দাবি মেনে নিয়েছে বিসিবি
ধর্মঘট তুলে নিয়েছেন ক্রিকেটাররা। বুধবার রাতে বাংলাদেেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেছেন আন্দোলনকারী ক্রিকেটাররা। বৈঠক শেষে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ঘোষণা দিয়েছেন মাঠে ফিরেছেন ক্রিকেটাররা। তিনি জানিয়েছেন, ক্রিকেটারদের তোলা ১৩ দফা দাবির ৯টি মেনে নিয়েছেন তারা।
না মানা চারটি দাবির মধ্যে বুধবার তোলা নতুন দুটি দাবি- ক্রিকেটারদের বোর্ডের লভ্যাংশের ভাগ দেয়া এবং নারীদেরও লভ্যাংশের ভাগ দেয়া আলোচনার সময় হয়নি বলে জানিয়েছেন পাপন। এ ছাড়া ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) সভাপতি, সেক্রেটারিদের পদত্যাগ বিসিবির হাতে নেই বলে মানতে পারছেন না তারা। আর দুটির বেশি টি-টোয়েন্টি লিগে অংশ নেয়ার ব্যাপারে ক্ষেত্র বিশেষে বিবেচনা করবে বিসিবি, জানিয়েছেন পাপন।
মেনে নেয়া ৯টি দাবি কোনগুলো, ধর্মঘটের দিন ক্রিকেটারদের বলা ভাষায় তুলে ধরা হলোঃ
* প্রিমিয়ার লিগে দলগুলোর সঙ্গে ক্রিকেটাররা নিজেরা চুক্তি করবে। দল নির্বাচন এবং পারিশ্রমিকের ব্যাপারে নিজেরা চুক্তি করবে। আমাদের দাবি, ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ আগের পদ্ধতিতে চালানো হোক।
* আগামী বছর থেকে আগের মতো বিপিএল চাই আমরা। স্থানীয় ক্রিকেটাররা যেন বিদেশি ক্রিকেটারদের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ন্যায্য মূল্য পায়। এটা অবশ্যই করতে হবে যেন আমাদের স্থানীয় ক্রিকেটাররা সেই পারিশ্রমিকটা পায়। সঙ্গে বিদেশি লিগগুলোর মতো আমাদের ক্রিকেটারদেরও ড্রাফটে নিজেদের ক্যাটাগরি পছন্দ করার সুযোগ দিতে হবে।
* ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি ১ লাখ টাকা করতে হবে। ক্রিকেটারদের বেতন ৫০ শতাংশ বাড়াতে হবে। অনুশীলনের ব্যবস্থা বাড়াতে হবে। জিম, ইনডোর, মাঠ সব কিছুর ব্যবস্থা রাখতে হবে। ১২ মাসের জন্য কোচ, ফিজিও, ট্রেইনার নিয়োগ দিতে হবে। পরবর্তী মৌসুমের আগে আমরা চাই এই সুযোগ সুবিধাগুলো নিশ্চিত করা হোক।
* প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে মানসম্মত বল দিয়ে খেলা চালানো আমাদের আরেকটি দাবি। ক্রিকেটারদের দৈনিক ভাতা ১৫০০ টাকা থেকে বাড়াতে হবে। ভেন্যুগুলোতে ক্রিকেটারদের ভ্রমণ খরচ ২৫০০ টাকা থেকে বাড়াতে হবে। বিভাগ ভিত্তিক যাতায়াতের জন্য বিমান ভ্রমণের ব্যবস্থা করতে হবে। যে হোটেলের ব্যবস্থা করা হবে সেখানে কমপক্ষে জিম এবং সুইমিং পুল থাকা বাধ্যতামূলক। মাঠে আসার জন্য ক্রিকেটারদের জন্য এসি বাসের ব্যবস্থা করতে হবে।
* জাতীয় দলের চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের সংখ্যা বাড়াতে হবে। চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারের সংখ্যা ৩০ জন করতে হবে। তিন বছর ধরে বেতন বাড়ানো হয় না। সেটা বাড়াতে হবে।
* গ্রাউন্ডসম্যানদের বেতন ৫-৬ হাজার টাকা থেকে বাড়াতে হবে। দেশি কোচদের প্রোমোট করতে হবে। আম্পায়ারদের জীবনের নিরাপত্তা দিতে হবে টাকা দিয়ে। ফিজিও, ট্রেইনারদের বেতন বাড়াতে হবে।
* আমরা দুইটা চার দিনের টুর্নামেন্ট খেলি। বিসিএল এবং এনসিএল। কিন্তু ওয়ানডে ভার্সনে আমরা মাত্র একটি আসর খেলি (ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ)। আমাদের আরেকটি আসর বাড়ানো উচিত। বিপিএলের মাধ্যমে আমরা একটি টি-টোয়েন্টি লিগেই খেলি। বিপিএলের আগ মুহূর্তে একটি টি-টোয়েন্টি আসর হওয়া জরুরি। আমরা চাই ন্যাশনাল ক্রিকেট লিগের একটি ওয়ানডে আসর চালু করা হোক।
* ঘরোয়া আসরের ক্ষেত্রে আমাদের একটি নির্দিষ্ট সময়সূচী থাকতে হবে। তাতে আমরা যেন প্রস্তুতি নিতে পারি সারা বছরের।
* বিপিএল-প্রিমিয়ার লিগের টাকাটা আমরা যেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ক্রিকেটারদের বুঝিয়ে দিতে হবে।

সিলেট টেলিগ্রাফ, স্বপ্নীল ৬৪ মির্জাজাঙ্গাল, সিলেট, ফোন :০১৭১২-৬৫০১৫৬ | Newsphere by AF themes.
Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.