Sun. Oct 17th, 2021

সিলেট টেলিগ্রাফ

সত্য প্রকাশে অবিচল

প্লাজমা দেওয়ার কথা বলে প্রতারণার অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

1 min read

 1,553 total views,  2 views today

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কোনো রোগীর শারীরিক অবস্থা যখন গুরুতর হয় তখনই তাকে প্লাজমা দেওয়া হয়। তবে সেটি সংগ্রহ করতে হয় রোগীর স্বজনদেরই। তাদের অনেকেই শরণাপন্ন হন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে। আর এদের অনেকেই প্রতারিত হন সেখানে ওত পেতে থাকা প্রতারকদের কাছে। প্লাজমা দেওয়ার মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে টাকা নিয়ে সটকে পড়েন এই প্রতারকেরা।

প্রতারণার এমন অভিযোগে শরিফ খান ওরফে বাবু (৩২) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে মতিঝিল এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। শরিফের বাড়ি চাঁদপুরের কচুয়া থানার গোলবাগে। ঢাকার বিভিন্ন স্থানে সময়ে সময়ে তিনি অবস্থান করতেন। এই শহরে তার কোনো স্থায়ী আবাস তাই পাননি গোয়েন্দারা। তার বিরুদ্ধে মতিঝিল থানায় একটি মামলা হয়েছে। আজ শুক্রবার তাকে আদালতে তুলে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। আদালত রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর না করে তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেন।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, ‌‌‌‍”প্লাজমা ব্যাংক অব বাংলাদেশ (কোভিড-১৯)” নামে ফেসবুকে একটি গ্রুপ আছে। গ্রুপটির সদস্য সংখ্যা প্রায় দুই লাখ। করোনায় আক্রান্ত কোনো রোগীর প্লাজমার প্রয়োজন হলে তার স্বজনেরা এই গ্রুপে রক্তের গ্রুপ লিখে সহযোগিতা চান। সঙ্গে তারা নিজেদের ব্যক্তিগত মুঠোফোন নম্বরও দিয়ে দেন। প্রতারকেরা তখন এসব মুঠোফোন নম্বরে যোগাযোগ করেন। এ ক্ষেত্রে তারা সেসব স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন যারা দুর্লভ রক্তের গ্রুপের (এ নেগেটিভ, বি নেগেটিভ, ও নেগেটিভ, এবি নেগেটিভ) প্লাজমা চেয়ে পোস্ট দেন।

ডিবির তেজগাঁও অঞ্চলের সহকারী কমিশনার মুজিব আহম্মদ পাটওয়ারী প্রথম আলোকে বলেন, স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রতারকেরা তাদের অবস্থান জানতে চান। স্বজনরা যদি তাদের অবস্থান চট্টগ্রাম বলেন, প্রতারকেরা তখন তাদের অবস্থান দূরবর্তী কোনো জেলার কথা বলেন। তারা তখন গাড়ি ভাড়া বাবদ কিছু অর্থ তাদের পাঠাতে বলেন। স্বজনেরা সেই অর্থ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে পাঠানোর পরই প্রতারকেরা টাকা নিয়ে ফোন বন্ধ করে দেয়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, প্রতারিত হয়ে ‌‌‌‍”প্লাজমা ব্যাংক অব বাংলাদেশ (কোভিড-১৯)” গ্রুপের অ্যাডমিনের কাছে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন। তার কাছ থেকে মুঠোফোন নম্বর নিয়ে তদন্ত শুরু করেন তারা। একপর্যায়ে শরিফ খানকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হন। শরীফ খান প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অন্তত ২০-২২ জনের সঙ্গে এমন প্রতারণা করেছে বলে জানিয়েছে। এমন আরও অনেক প্রতারক আছে। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টাও অব্যাহত আছে বলে জানান তিনি।

Ad
সম্পাদক : যীশু আচার্য্য II স্বপ্নীল ৬৪ মির্জাজাঙ্গাল, সিলেট II ফোন: ০১৭১৯-৭৩৩৫৪৯ | Newsphere by AF themes.
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.